আজ ১৮ই ফেব্রুয়ারী শহীদ জোহা দিবস…..
১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থান আন্দোলনের সময় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের শিক্ষক ড. মোঃ শামসুজ্জোহা প্রক্টরের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে পাকিস্তানি সেনাদের গুলিতে নিহত হন। এরপর থেকেই দিনটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘শিক্ষক দিবস’ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। ১৯৬৬ সালের ৫-৬ ফেব্রুয়ারি লাহোরে বিরোধী দলগুলোর এক সম্মেলনে যোগদান করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব বাংলার অধিবাসীদের স্বায়ত্তশাসনের দাবিসংবলিত ছয় দফা কর্মসূচি পেশ করেন। বঙ্গবন্ধু প্রণীত ছয় দফা ও পরবর্তী সময়ে ১১ দফার দাবিতে ১৯৬৯ সালের শুরু থেকে পূর্ব পাকিস্তানে শোষণবিরোধী গণ-আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটে।

এরই অংশ হিসেবে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ ১৯৬৯ সালের ১৭ জানুয়ারি সারা দেশে দাবি দিবস, ১৮ জানুয়ারি ঢাকা শহরে ছাত্র ধর্মঘট ও ২০ জানুয়ারি সমগ্র পূর্ব পাকিস্তানে ছাত্র ধর্মঘট পালন করে। ২০ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মিছিলরত অবস্থায় পাকিস্তানি পুলিশের গুলিতে ছাত্র ইউনিয়ন নেতা আসাদুজ্জামান নিহত হন।এই সময় আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় বঙ্গবন্ধুসহ ঊর্ধ্বতন বেসামরিক কর্মকর্তাদের বিচারকাজ চলছিল। ১৫ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম আসামি সার্জেন্ট জহুরুল হককে জেলের ভেতর গুলি করে হত্যা করে। এই হত্যার প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠে পূর্ব বাংলার জনগণ। এরই ধারাবাহিকতায় ১৭ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের একটি প্রতিবাদী মিছিল রাজশাহী শহরে পুলিশি হামলার সম্মুখীন হয় এবং সেখানে বেশ কয়েকজন ছাত্র আহত হন। তৎকালীন প্রক্টর ড. জোহা সেখানে ছুটে যান এবং ছাত্রদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।

ওই দিন সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে শিক্ষকদের এক প্রতিবাদ সভায় বক্তৃতাকালে ড. জোহা নিজের জামায় লেগে থাকা রক্ত দেখিয়ে বলেন, ‘আজ আমি ছাত্রদের রক্তে রঞ্জিত। এরপর কোনো গুলি হলে তা ছাত্রকে না লেগে যেন আমার গায়ে লাগে।’পরদিন ১৮ ফেব্রুয়ারি সকালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের একটি বিক্ষোভ মিছিল ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে রাজশাহী শহরের উদ্দেশে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের দিকে এগিয়ে যায়। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের বাইরে পাকিস্তানি মিলিটারিরা সশস্ত্র অবস্থান নেয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ভাষাসৈনিক ড. জোহা মুখোমুখি অবস্থানের ভয়াবহতা স্পষ্টতই বুঝতে পারলেন।

এ অবস্থায় তিনি ছোটাছুটি শুরু করলেন, একবার ছাত্রদের দিকে তাদের মিছিল নিবৃত্তের জন্য, তো অন্যবার সেনা সদস্যদের দিকে তাদের ফায়ার করা থেকে বিরত রাখার জন্য। তিনি হাত উঁচিয়ে সেনা সদস্যদের উদ্দেশে বারবার বলছিলেন, ‘প্লিজ ডোন্ট ফায়ার, দে আর স্টুডেন্টস।’ ড. জোহাসহ অন্যান্য শিক্ষকের আশ্বাসে ছাত্ররা যখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে ফিরছিল, ঠিক তখনই ঘটে ইতিহাসের এক জঘন্যতম ঘটনা। পাকিস্তানি সেনারা অতর্কিত গুলি শুরু করল। গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে গেলেন ড. জোহা , আহত হলেন দায়িত্বরত আরো কয়েকজন শিক্ষক ও ছাত্র।আহত ড. জোহাকে মিলিটারি ভ্যানে করে নিয়ে যাওয়া হয় মিউনিসিপ্যাল অফিসে। সেখানে তাঁকে চিকিৎসা না দিয়ে দীর্ঘ সময় অবহেলায় তাঁর নিথর দেহ ফেলে রাখা হয়। পরবর্তী সময়ে রাজশাহী মেডিক্যালে নিয়ে যাওয়া হয়। বিকেল ৪টার দিকে তাঁকে সার্জিক্যাল রুমে নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেখানেই এই মহান শিক্ষক শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।